রোদে থাকুন সুরক্ষিত

আসছে গ্রীষ্মকাল। তবে এখন থেকেই, সূর্য তার উপস্থিতি জানান দিতে শুরু করে দিয়েছে। কাঠ-ফাটা রোদ্দুরে বেশিক্ষন থাকার জন্য ত্বকে সানবার্নের সমস্যা তো আছেই; এছাড়াও রোদের তাপ, ধুলো-ময়লা, অতিরিক্ত ঘেমে যাওয়া – এরকম নানা কারনের জন্য ত্বক ও  চুল সহজেই ক্ষতিগ্রস্থ হয়। তাই এই সময়ে, রোদে বের হওয়ার আগে প্রয়োজন একটু বাড়তি যত্নের। গ্রীষ্ম আসার আগেই তাই প্রতিদিনের রুটিনে কিছু সচেতনতা ও অভ্যাস যোগ করে ফেলুন –

  • এই গ্রীষ্মকালে সানস্ক্রিন ছাড়া ঘরের থেকে এক ঘন্টার জন্যও বের হওয়া যাবে না। সানস্ক্রিন আমাদের ত্বকে এমন একটি আবরণ হিসাবে কাজ করে যা ত্বকের উপর লাগানো থাকলে সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মির প্রভাব থেকে মুক্ত থাকা যায়। সূর্যের প্রখর তাপে UVA ও UVB নামের দুই ধরনের ক্ষতিকর রশ্মি থাকে। ত্বকের অকাল বার্ধক্য, রোদে পোড়া দাগ সৃষ্টির পাশাপাশি এই ক্ষতিকর রশ্মিগুলোর কারণে স্কিন ক্যানসার পর্যন্ত হতে পারে। তাই অবশ্যই রোদে বের হওয়ার ১৫-২০ মিনিট আগে আপনার স্কিন টাইপ অনুযায়ী মানানসই সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে ভুলবেন না। মূলত, সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্তই সূর্যের প্রখরতা সবচেয়ে বেশি থাকে, তাই এইসময় টুকুই রোদের হাত থেকে বাঁচতে সানস্ক্রিন প্রয়োগের জন্য আদর্শ সময়। বেশিক্ষন রোদে থাকলে সানস্ক্রিনের কার্যকরিতা নষ্ট হয়ে যায়। তাই ২-৩ ঘন্টা পর পর অবশ্যই সানস্ক্রিন রি-এপ্লাই করতে হবে।
    প্রতিদিনের সানস্ক্রিন হিসাবে ব্যবহার করতে পারেন Puresh UV Protector SPF 35PA+++ যা যেকোনো স্কিন টাইপ (অয়েলি, ড্ৰাই, কম্বিনেশান, সেনসেটিভ), জেন্ডার এবং সব বয়সীদের জন্য মানানসই একটি হালাল সানস্ক্রিন। এটি মূলত একটি ট্রিপল ফাংশনাল সানস্ক্রিন যা একই সাথে আপনাকে সান প্রটেকশান, হোয়াইটেনিং এবং এন্টি-এজিং এ সাহায্য করবে। 
  • শুধু সানস্ক্রিনের SPF যথেষ্ট নয়। খেয়াল রাখুন যেন এই সময়ে আপনার ডেইলি ময়েশ্চারাইজার, মেকআপ বেস, এমন কি কমপ্যাক্ট পাউডারটিও SPF (Sun Protection Factor) সমৃদ্ধ হয়। এতে আপনার স্কিন থাকবে সূর্যের হাত থেকে সব ভাবে সুরক্ষিত।
  • আমাদের স্কিনের মত আমাদের চোখ ও চোখের চারপাশও প্রখর রোদে অনেক বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। তাই, রোদে বের হওয়ার আগে অবশ্যই রোদচশমা ব্যবহার করুন। আপনার সানগ্লাস বা রোদচশমা যেন অবশ্যই শতভাগ সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি রোধ করতে পারে, কেনার সময় সেদিকে নজর রাখতে ভুলবেন না। প্রয়োজনে হ্যাট ব্যবহার করুন।
  • অনেক সময় আলসেমির কারণে আমাদের ছাতা ব্যাগে বহন করা বা ব্যবহার করা হয়না। কিন্তু রোদ থেকে বাঁচতে ছাতার কোনো বিকল্প নেই। তবে খেয়াল রাখবেন, রোদে কালো ছাতা ব্যবহার না করাই শ্রেয়। হালকা কোনো রঙের ছাতা বেছে নিন এই গ্রীষ্মে। এমন কি, আপনার পরনের জামাটিও ঢিলেঢালা ও হালকা রঙের হলেই ভালো।
  • অতিরিক্ত রোদে সবচেয়ে বেশি যে সমস্যাটি দেখা যায়, তা হচ্ছে ডিহাইড্রেশান। তাই বাইরে যাওয়ার আগে অবশ্যই সাথে পানির বোতল রাখতে ভুলবেন না। যেহেতু গরমে ত্বকের আর্দ্রতা একেবারে কমে যায়, তাই ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখতে প্রচুর পরিমাণে পানি, পানিজাতীয় খাবার ও পানিসমৃদ্ধ ফলমূল খেতে হবে। খাদ্যাভাসে ভাজা-পোড়া খাবার এড়িয়ে চলতে হবে এবং মৌসুমি ফলমূল যোগ করতে হবে।

এরকম অল্প কিছু সচেতনতা অবলম্বন করলেই প্রখর রোদেও থাকা যাবে সুরক্ষিত। কারণ, গ্রীষ্মকালে রোদের তাপতো থাকবেই, তাই বলে রোদ থেকে বাঁচার জন্য সবসময় বাড়িতে বসে থাকা তো আর যাবে না!

Leave a Reply