Eat Barley to beat Diabetes

সচরাচর দেখা যায় যে ডায়াবেটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিরা কার্বোহাইড্রেটকে ইভিল মনে করেন। এতে তাদের অবশ্য দোষ দেওয়াও যায় না। কারণ এই কার্বোহাইড্রেটই অনেক খানি দায়ী রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বাড়াতে। রক্তে গ্লুকজের মাত্রা নির্ভর করে গ্লাইসেমিক ইনডেক্সের উপর। কি এই গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই)?

গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) খাবার:

গ্লাইসেমিক ইনডেক্স,খাবারের একধরণের মান, যা নির্ধারণ করে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা কত ধীরে অথবা কত দ্রুত বাড়ছে। দুই ধরণের ডায়াবেটিসেই উচ্চ গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) খাবার থেকে দ্রুত গ্লুকোজ নিঃসরণ করে রক্তে কার্বোহাইড্রেটের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়, যেমন মিষ্টি জাতীয় খাবার, সাদা ভাত। কম গ্লাইসেমিক জাতীয় খাবারে গ্লুকোজের মাত্রা ধীরে ধীরে বাড়ায় এবং গ্লুকোজ নিয়ন্ত্রণ বজায় রাখতে সহায়তা করে, যেমন সবুজ শাকসবজি, ফলমূল। তাই এটি স্পষ্টতই বোঝা যাচ্ছে কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) খাবারগুলো ডায়াবেটিস আক্রান্তদের জন্যে স্বাস্থ্যকর। তবে, আপনি সম্পূর্ণরূপে কার্বোহাইড্রেটে বিশ্বাস হারানোর আগে, আপনাকে বার্লির সাথে পরিচয় করিয়ে দিচ্ছি যা একটি কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) খাবার।

বার্লি একটি কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স (জিআই) খাবার:

বার্লি, যা বাংলাতে ‘জব’ নামেও পরিচিত, এটি একটি প্রাচীন শস্য। দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া এবং ইউরোপে রুটি এবং দই তৈরিতে ব্যবহার করা হয় বার্লি, যাতে আছে বিভিন্ন ধরণের পুষ্টিগুন্। সুইডেনের লুন্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে যে রক্তে চিনির মাত্রা হ্রাস এবং ডায়াবেটিসের ঝুঁকি হ্রাস করে বার্লি দ্রুত মানুষের স্বাস্থ্যের উন্নতি করতে পারে। আর বার্লি সাহায্য করে মানুষের ক্ষুধা কমাতে এবং কার্ডিওভাসকুলার রোগের ঝুঁকি হ্রাস করতে।

ডায়াবেটিসে কেন দরকার বার্লি ডায়েট:

ডায়াবেটিস আক্রান্ত ব্যক্তির ডায়েটে বার্লির আছে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। উচ্চ মাত্রার ম্যাগনেসিয়ামের এ ভরপুর হওয়ায় বার্লি ডায়াবেটিস রোগীদের এবং ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি এড়ানোর জন্য অবিশ্বাস্যভাবে উপকারী খাবার । বার্লিতে থাকা কার্বোহাইড্রেটগুলি ধীরে ধীরে রক্ত ​​প্রবাহের মধ্যে শোষিত হয়ে গ্লুকোজে রূপান্তরিত হয়, যা রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা দ্রুত না বাড়িয়ে শক্তি এবং সেলুলার ফাংশন বজায় রাখতে সহায়তা করে। বার্লি ডায়েটারি ফাইবারও খুব বেশি থাকে, যা ধীরে ধীরে হজম করতে সাহায্য করে।

কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে বার্লি অন্যান্য কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবারের তুলনায় রক্তে গ্লুকোজের বৃদ্ধি হ্রাস করে। এবং অপর একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, টাইপ ২ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত অংশগ্রহণকারী ব্যক্তি যারা একটি নির্দিষ্ট পরিমানে বার্লি রেখেছিলেন ডায়েটে, তাদের সবারই গড় A1C (এমন একটি রক্ত ​​পরীক্ষা যা গত ৩ মাসে আপনার গড় রক্তের গ্লুকোজের মাত্রা পরিমাপ করে) ৮.৪% থেকে ৫.৯% এ নেমে এসেছিল!

সুইডেনের গোথেনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি দলের সাথে পরিচালিত গবেষণায় গবেষকরা আরও জানতে পেরেছিলেন যে বার্লি কার্নেলের ডায়েটরি ফাইবারগুলি রক্তে কার্বোহাইড্রেটের মাত্রায় সরাসরি প্রভাব ফেলে এবং তা কমাতেও সাহায্য করে।
ডায়বেটিস আছে যাদের, তারা প্রতিদিন ৩০ গ্রাম পর্যন্ত সুগার ইনটেক করতে পারে। আমাদের বার্লি ফ্লেকসে প্রতি ১০০ গ্রামে ০.৮ গ্রাম সুগার আছে, যেটা পরিমানে অনেক কম (যেকোনো শর্করা খাবারে সুগার থাকবেই), এবং এই সুগার ন্যাচারাল সুগার, বাইরে থেকে আর্টিফিশিয়াল ভাবে যোগ করা নয়। তাই আমাদের বার্লি ফ্লেক্স অতিরিক্ত কোনো সুগার ধারণ করে না, বরং ভালো কার্বোহাইড্ৰেট থেকে ন্যাচারাল প্রসেসে অল্প পরিমান সুগার থাকে।

প্রতিদিনের ডায়েটে বার্লি: 

বার্লি চিবাতে এবং হজম হতে একটু বেশি সময় নেয় এবং খাওয়ার পরে রক্তে চিনির, কার্বোহাইড্রেট এবং ইনসুলিনের মাত্রা আস্তে আস্তে কমিয়ে আনে। চেষ্টা করুন সকালের নাস্তায় রেগুলার কর্নফ্লেক্স এর বদলে বার্লি ফ্লেক্স রাখতে। এটি পরিবেশন করতে পারবেন দুধের সাথে। দুপুরে রুটি বানাতে সাদা আটার বদলে ব্যবহার করুন লো জিআই আটা। এছাড়াও সালাদ এবং স্যুপ সহ অন্যান্য খাবারের মধ্যে ভাতের জায়গায় ব্যবহার বার্লি করুন।

 
আপনি যদি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হন বা ওজন কমানোর জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছেন তবে আপনাকে জানতে হবে আপনার জন্য সর্বোত্তম ডায়েট কোনটি। দীর্ঘমেয়াদে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে হেলথি ডায়েট অনুসরণ করা অত্যন্ত জরুরী। সেক্ষেত্রে আপনি বার্লি যোগ করে বানিয়ে নিতে পারেন আপনার হেলথি ডায়েট। এর পরের লেখায় হাজির হব কিছু সুস্বাদু বালির রেসিপি নিয়ে। সময় করে দেখে নিতে পারেন, BARLEY: THE WONDER GRAIN!